আজ: ১৮ই আগস্ট, ২০১৯ ইংরেজি
শিরোনাম

আ’লীগ নেতা হত্যায় যুবলীগ নেতা আটক, স্বীকারোক্তি

পাবনা প্রতিনিধি: পাবনার ঈশ্বরদীতে মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক আওয়ামী লীগ নেতা মোস্তাফিজুর রহমান সেলিম হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে উপজেলা যুবলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আব্দুল্লাহ আল বাকী আরজু বিশ্বাসকে অস্ত্র-গুলিসহ আটক করেছে পুলিশ।

আরজু বিশ্বাস চররুপপুর দক্ষিণপাড়া গ্রামের মৃত ইমাদুল হক বিশ্বাসের ছেলে এবং পাকশী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এনামুল হক বিশ্বাসের ভাতিজা।

সোমবার (১১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ঈশ্বরদী থানায় এক সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম।

তিনি জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রোববার (১০ ফেব্রুয়ারি) মধ্যরাতে পাবনা সদর উপজেলার হেমায়েতপুর এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। এ সময় তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী বাড়ি থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, দুই রাউন্ড তাজা গুলি ভর্তি একটি ম্যাগজিন উদ্ধার করা হয়।

আটকের পর পুলিশের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে যুবলীগ কর্মী আরজু হত্যার সাথে নিজের জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে বলে দাবি পুলিশের।হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে তিনি আরো গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছেন যা তদন্তের স্বার্থে গোপন রাখা হয়েছে বলেও জানায় পুলিশ।

স্থানীয়রা জানান, মুক্তিযোদ্ধা সেলিম গত ইউপি নির্বাচনে বর্তমান চেয়ারম্যান এনামুল হক বিশ্বাসের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবার পর এনাম বিশ্বাসের পরিবারের সদস্যরা সন্ত্রাসী বাহিনী তৈরি করে পদ্মা নদীর বালুমহাল নিয়ন্ত্রণ, চাঁদাবাজিতে জড়িয়ে পড়েন।

সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকায় এনাম বিশ্বাসের ছেলে রকি বিশ্বাস অত্যাধুনিক আগ্নেয়াস্ত্রসহ গ্রেফতারও হয়েছিলেন।এসব অন্যায়ের বিরুদ্ধে সব সময়ই সোচ্চার ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা সেলিম।

উল্লেখ্য, গত ৬ ফেব্রুয়ারি রাতে পাবনার রুপপুরে নিজ বাড়ির সামনে গুলিতে নিহত হন পাকশী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও মুক্তিযোদ্ধা মোস্তাফিজুর রহমান সেলিম। পর দিন ৭ ফেব্রুয়ারি রাতে অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে মামলা করেন নিহতের ছেলে তন্ময়।

মুক্তিযোদ্ধা সেলিম হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধনসহ ধারাবাহিক আন্দোলন কর্মসূচি পালন করছেন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও এলাকাবাসী।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •