আজ: ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইংরেজি
শিরোনাম

জনপ্রতিনিধি হয়ে সেবা করতে চান ‘কবির হোসেন সরকার’

দেওয়ান মো: ইমন । বাংলালাইভ টোয়েন্টিফোর ডট কম

আসছে আগামী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পার্থী হিসেবে ইচ্ছা প্রকাশের পর থেকেই আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে এখন আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহ্বায়ক মোঃ কবির হোসেন সরকার।

দলের কাছে পরিচ্ছন্ন রাজনীতির আদর্শ হিসেবে পরিচিত কবির হোসেন সরকার যেমন সাংগঠনিক জনপ্রিয়তা রয়েছে। তেমনি তিনি পরোপকারী, দরদি ও দক্ষ সংগঠক হিসেবেও বেশ পরিচিত। নেতা-কর্মীর পাশাপাশি সাধারণ মানুষের কাছেও রয়েছেন সমান জনপ্রিয়তা।

দলের জনকল্যাণে ও জনগনের সেবা করার জন্য এমন প্রার্থীর প্রয়োজন রয়েছে বলে মনে করছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয় বেশ কয়েকজনের সাথে কথা বললে তারা বলেন, মোঃ কবির হোসেন সরকার কোনো অহংকার নাই। আমরা আশা করি আগামী নির্বাচনে কবির সরকার ইয়ারপুর ইউনিয়ন পরিষদ থেকে নির্বাচন করলে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হবে।

স্থানীযরা আরও বলেন, আমরা আশারাখি আওয়ামীলীগের মতো দলে তাকে ব্যদিত অন্য কাউকে স্থান দিবে না ।

এদিকে আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহ্বায়কের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজী, মাদক ও ভূমিদূস্যতাসহ সকল ধরনের অপরাধ দূর করতে যুবলীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে নিঃরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন আশুলিয়া থানা যুবলীগের অহংকার কবির হোসেন সরকার।

ইয়ারপুর ইউনিয়নের সার্বিক উন্নয়ন ও রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার কথা বিবেচনা করে কবির হোসেন সরকারকে চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন পাওয়া উচিত বলে মনে করেন স্থানীয় নেত্রীবৃন্দরা।

রাজনীতি থেকে সরাসরি জনপ্রতিনিধির মঞ্চে যেতেচান তরুণ নেতা মো: কবির হোসেন সরকার।

প্রার্থী হওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি কিছু পাওয়ার আশায় দল করি না। আমার দলের জন্য আমি নিবেদিত প্রাণ। আমি যেমন আমার দলকে ভালোবাসি, তেমনি ইয়ারপুরবাসি আমায় মন থেকে ভালোবাসে। তাদের ভালোবাসাই আমার সব। এর পর জনগনের আশা পূরণে যদি দল আমাকে মনোনয়ন দেয়, তবে ইয়ারপুরসাসি আমাকে বিপুল ভোটে জয়ী করবে বলে আমি আশা করি। ইয়ারপুরবাসির মধ্যে আমি সেই অধীর আগ্রহ দেখতে পাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, আমি যদি নির্বাচিত হতে পারি তবে ইয়ারপুর ইউনিয়ন’কে আমি আধুনিক শিল্পাঞ্চলে পরিনত করবো। ইয়ারপুর ইউনিয়ন হবে মাদক ও সন্ত্রাসমুক্ত একটি মডেল ইউনিয়ন ।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 107
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানান