আজ: ২৩শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইংরেজি
শিরোনাম

ভারতে ঘূর্ণিঝড় ফণীর আঘাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি, সতর্কতা জারি!

বাংলালাইভ ডেস্ক ।

ভারতের উড়িষ্যা উপকূলে অত্যন্ত শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ফণী আঘাত হানায় প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতির ঘটনা ঘটেছে। আবহাওয়া দফতর পূর্বাভাস দিয়েছিল, আজ (বৃহস্পতিবার) বিকেল ৩ টে নাগাদ উড়িষ্যা উপকূলে ঘূর্ণিঝড় ফণী আঘাত হানবে। কিন্তু তার আগেই ফণী আজ সকাল ৯টা নাগাদ ১৯৫ কিলোমিটার বেগে উড়িষ্যার গোপালপুর এবং পুরীতে আছড়ে পড়ে।

উড়িষ্যা সরকার বিপজ্জনক এলাকা থেকে ১১লাখ মানুষকে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে আশ্রয় কেন্দ্রে রেখেছে।সতর্কতামূলক পদক্ষেপ হিসেবে পশ্চিমবঙ্গের কোলকাতা বিমানবন্দর আজ বিকেল ৩টে থেকে আগামীকাল সকাল ৮টা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। উড়িষ্যার ভুবনেশ্বরে বিমান পরিসেবা বন্ধ রয়েছে। এছাড়া প্রচুর ট্রেন চলাচল বাতিল করা হয়েছে।

এদিকে, ঘূর্ণিঝড় ফণী বাংলায় ঢোকার আগেই আজ সকাল সাড়ে ৯টা নাগাদ আচমকা ২০ সেকেন্ডের ঝড়ে পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিম মেদিনীপুর শহরের একাংশে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এরফলে বেশ কিছু গাছ, বাড়িঘর ও দোকানপাট ভেঙে পড়েছে। বিধাননগর এলাকার ওই ঘটনায় মানুষজন আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। ওই এলাকায় গত রাত থেকে ভারী বৃষ্টি হচ্ছে। আজ সকাল থেকে গভীর নিম্নচাপ ও ঝোড়ো হাওয়া শুরু হয়েছে।

উত্তর প্রদেশে ফণীর প্রভাবে এপর্যন্ত চার জনের মৃত্যু হয়েছে। সেখানে উচ্চসতর্কতা জারি করা হয়েছে। উড়িষ্যায় এপর্যন্ত দু’জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। ফণী ঘূর্ণিঝড়ের কারণে আগামী ৪৮ ঘন্টা সমস্ত রাজনৈতিক কর্মসূচি স্থগিত রাখলেন রেখেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। দুর্যোগ মোকাবিলায় তিনি সাধারণ মানুষের কাছে সহযোগিতা কামনা করেছেন। সতর্কবার্তা দিয়ে তিনি আগামী ২ দিন রাজ্যবাসীকে সাবধানে ও নিরাপদে থাকার পরামর্শ দিয়েছেন।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বলেন, ‘এটি একটি প্রাকৃতিক দুর্যোগ৷ ভীষণ ঝোড়ো হাওয়া বইছে৷ কাঁচা বাড়িতে থাকবেন না৷ নিরাপদ জায়গায় আশ্রয় নিন৷ আগামী ৪ মে পর্যন্ত ঝড়ের তাণ্ডব চলবে৷ প্রশাসন ২৪ ঘণ্টা নজরদারি চালাচ্ছে৷ প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাইরে বেরোবেন না৷’

যারা পুরনো বাড়িতে আছেন, তারা অন্যত্র চলে যান। আমারা জেলায় জেলায় ত্রাণের ব্যবস্থা করেছি। অনেকেই বাড়ির মায়া ছেড়ে যেতে চান না। দয়া করে তারা ত্রাণ শিবিরে চলে যান বলেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আবেদন জানিয়েছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 397
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানান