আজ: ১৭ই নভেম্বর, ২০১৯ ইংরেজি
শিরোনাম

মশা নিয়ন্ত্রণে সারা বছরই কাজ করবো: ডিএনসিসি মেয়র

বাংলালাইভ ডেস্ক ।

ডিএনসিসি মেয়র মোঃ আতিকুল ইসলাম বলেছেন, এডিস মশা নিয়ন্ত্রণে এখন থেকে আমরা সারা বছরই কাজ করবো। আমরা ইতোমধ্যে কিটতত্ত্ববিদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, গবেষক, রোগ নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাসহ বিশেষজ্ঞ প্যানেল তৈরি করেছি।’

রাজধানীর তোপখানা রোডে রোববার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ মেডিক্যাল এসোসিয়েশন ভবনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও চিকিৎসা মনিটরিং সেল এর সাথে এক মতবিনিময় সভায় তিনি একথা বলেন।
মতবিনিময় সভায় মেয়র তার বক্তব্যে গত কয়েক মাস ধরে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসায় দেশের নিবেদিতপ্রাণ চিকিৎসকরা যেভাবে কাজ করেছেন তার জন্য চিকিৎসা সেবার সাথে জড়িত সকলকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

মেয়র বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুস্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে সর্বাত্মক ডেঙ্গু মোকাবেলা করার। আমরা আমাদের সবটুকু দিয়ে চেষ্টা করছি। আমাদের বেশ কিছু প্রতিবন্ধকতা রয়েছে, অন্যতম বড় সমস্যা হচ্ছে নতুন ১৮টি ওয়ার্ডের জন্য কোনো জনবল নেই, পুরাতন ওয়ার্ডেও জনবল কম। তবুও আমরা কাজ করে যাচ্ছি, নতুন কর্মী ও জনবল নেয়াও প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

তিনি আরো বলেন, আমরা মশার কিটনাশক আমদানির সকল সিন্ডিকেট ভেঙে নতুন ও অধিক কার্যকর কিটনাশক আমদানি করেছি, যা এখন ডিএনসিসির সকল অঞ্চলে প্রয়োগ করা হচ্ছে। আমরা ইতোমধ্যে ডেঙ্গু ও এডিস নিয়ন্ত্রণে একটি আধুনিক গবেষণাগার তৈরি করার প্রস্তাব করেছি এবং এর মাধ্যমে আমরা একটি ইন্টিগ্রেটেড ভেক্টর ম্যানেজমেন্ট স্ট্রাটেজি তৈরি করে সে অনুযায়ী কাজ করবো।

আমরা এরই মধ্যে বাংলাদেশ স্কাউটস ও বিএনসিসির সহায়তায় পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিচালনা করছি। কিন্তু আমরা চাই জনগণ ও এলাকাবাসী সম্পৃক্ত হোক। আমরা তথ্য-প্রযুক্তি ও যান্ত্রিক ব্যবস্থার মাধ্যমে মশক নিধন কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করেছি।

মেয়র সকলের উদ্দেশে বলেন, ‘আমরা যেন যত্রতত্র ময়লা না ফেলে নির্দিষ্ট স্থানে ময়লা ফেলি। আমরা যেন সুনাগরিক হয়ে যাই, আমরা যেন এডিস মশার প্রজননস্থল ধ্বংস করি।’
ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও চিকিৎসা মনিটরিং সেলের আহ্বায়ক ও বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) এর সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও চিকিৎসা মনিটরিং সেল সিটি করপোরেশনের যে কোনো সহায়তায় পাশে থাকবে। চিকিৎসকরা বিভিন্ন দুর্যোগে যেভাবে দেশবাসীর সেবায় নিয়োজিত ছিলেন এখন ডেঙ্গু মোকাবেলায় ও ডেঙ্গু আক্রান্তদের সেবায়ও চিকিৎসকরা দিন রাত কাজ করে যাচ্ছেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, কারো উপর দোষারোপের খেলায় মেতে না উঠে সবাই মিলে এই এডিস মশার উপদ্রপ ও ডেঙ্গু রোগ থেকে উত্তরণ পেতে হবে। দেশের জন্য দেশের জনগণের জন্য আমরা সকল ধরনের সহযোগিতা করতে প্রস্তুত।

আলোচনা অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন বিএমএ’র মহাসচিব ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. রোকেয়া সুলতানা, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদ এর মহাসচিব ডা. মো. আব্দুল আজিজ প্রমুখ।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 6
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানান