আজ: ১৭ই সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইংরেজি
শিরোনাম

‘মেট্রোরেলের একেকটা পিলার একেকজন সরকারি দলের লোককে দেওয়া হয়েছে’

বাংলালাইভ ডেস্ক ।

তৃণমূল থেকে শুরু করে সরকারের ওপর পর্যন্ত শুধু লুটপাট চলছে দাবি করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, মেট্রোরেলের একেকটা পিলার (নির্মাণ ঠিকাদারি) নাকি একেকজন সরকারি দলের লোককে দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘আমার দেশ আমার শিল্প’ শীর্ষক এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। সভার আয়োজন করে ন্যাশনালিস্ট রিসার্চ সেন্টার (এনআরসি) নামের একটি সংগঠন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমাদের এখানে ম্যানুফ্যাকচারিং ইন্ডাস্ট্রি গড়ে উঠছে না। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ইন্ডাস্ট্রি বলতেই গার্মেন্টস। আজকে আমাদের শিল্পের যদি বিকাশ ঘটাতে হয়, তাহলে বাংলাদেশকে নিয়ে চিন্তা করতে হবে। এজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘সরকারের ব্যর্থতা এই জায়গাতেই। তারা সেই সুযোগ সৃষ্টি করতে পারেনি। যে ট্যানারিগুলোকে পুরো প্রক্রিয়াজাত করে ফাইনাল প্রোডাক্টের জন্য প্রস্তুত করা যেত, সেটা হচ্ছে না।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘(সরকার ট্যানারি খাতে) ব্যাংক লোন দেয়নি। বিশেষ একটি প্রতিষ্ঠানের জন্য জনতা ব্যাংকের লোন বন্ধ হয়েছে। এগুলো যদি ঠিকমতো নিয়ে আসতে না পারে তাহলে হবে না। আর এই সরকারকে দিয়ে এটা হবে না।’

‘কারণ, এরা আসলে পুরোপুরি প্রতারক সরকারে পরিণত হয়েছে। এখানে লুট ছাড়া কিছু নেই- একেবারে তৃণমূল থেকে শুরু করে ওপর পর্যন্ত শুধু লুটপাট চলছে’ অভিযোগ করেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘চামড়া শিল্প চরম বিপাকের মধ্যে পড়েছে। এই কোরবানি ঈদে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান এতিমখানাগুলো, যে এতিমখানাগুলোতে এই চামড়া থেকেই বছরের অর্ধেক সময়ের অর্থের সংস্থান হতো।’

‘কিন্তু অত্যন্ত সুচারুভাবে একটা কৌশলের মধ্যে দিয়ে কারসাজি করে চামড়ার দাম না দিয়ে নষ্ট করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সময়মতো চামড়া বিক্রি না হওয়ায় অর্ধেকের বেশি চামড়া নষ্ট হয়ে গেছে’ বলেন তিনি।

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘কালকে একটা কথা শুনলাম- এই যে মেট্রোরেল, এলিভেটেড এক্সপ্রেস ওয়ের একেকটা পিলার (নির্মাণ ঠিকাদারি) নাকি একেকজন সরকারি দলের লোকজনকে দেওয়া হয়েছে। তো আমি জিজ্ঞেস করলাম- এখানে তো বিদেশি বিনিয়োগকারীরা রয়েছে, এখানে তারা কাজ করছে?’

‘তো বলা হচ্ছে- তাদেরকে বাধ্য করা হয়েছে, একেকটা পিলার একেকজন সরকারি দলের লোকজনকে দেওয়ার জন্য। যদি অবস্থা এই হয়, লুট ছাড়া কোনো কিছু নাই। এই সরকারের লোকেরা লুট করে যাওয়া ছাড়া কিছু করছে না। তাই দেশকে বাঁচাতে হলে গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে হবে। দেশপ্রেমিক নেতাকে ফিরিয়ে আনতে হবে’ যোগ করেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিব আরও বলেন, ‘গ্রাম থেকে শহর- মানুষের সঙ্গে কথা বলেন, ইনভেস্টর (বিনিয়োগকারী), ব্যাংকারদের সঙ্গে যদি কথা বলেন, তাহলে দেখবেন যে, সব দিকে শুধু লুট চলছে। ভাগ-বাঁটোয়ারা করে নিচ্ছে আওয়ামী লীগের নেতারা। টিআর-কাবিখা থেকে শুরু করে মেগা প্রজেক্ট পর্যন্ত সব জায়গায় ভাগ-বাঁটোয়ারা চলছে।’

আয়োজক সংগঠনের পরিচালক বাবুল তালুকদারের সভাপতিত্বে এবং ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সদস্য ডি এম আমিরুল ইসলাম অমরের সঞ্চালনায় সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, বিএনপি ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, শামসুজ্জামান দুদু, যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল প্রমুখ।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  • 1
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি সম্পর্কে আপনার মতামত জানান